কথা (English translation below)

“যখন আমি ছোট ছিলাম, আমার বাবা একবার আমাকে ফার্মগেটের মাদার তেরেসা হোমস এ নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে আমি একজন লোকের গল্প শুনেছিলাম।তার স্ত্রী সন্তান যাতে সুন্দর জীবন যাপন করতে পারে সেই আশায় লোকটি নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকা এসেছিল। কিন্তু কিভাবে যেন লোকটি জীবনে কিছু বাজে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আর কিছু বাজে লোকদের সাথেও জড়িয়ে পড়েছিল। এমনকি এই সময়ে লোকটি মাদকের সর্বনাশা পথেও হাটতে শুরু করেছিল। এক ভয়ানক রাতে এক ড্রাগ ডিলার যে কিনা লোকটির কাছে টাকা পেত, লোকটিকে মেরে ফার্মগেটের একটি ডাষ্টবিনের কাছে মরার জন্য ফেলে রেখেছিল। মুমূর্ষ অবস্থায় লোকটি যখন রাস্তায় পড়ে ছিল তখন একটি গাড়ি তার পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়। মাদার তেরেসা হোমস এর একজন সিস্টার তখন ঐ রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় লোকটিকে মুমূর্ষ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। সিস্টার তখনই লোকটিকে আশেপাশের মানুষের সাহায্যে হাসপাতালে নিয়ে যান। দুঃখজনকভাবে লোকটির আহত পা আর সারানো সম্ভব হয় নি ফলে সেটিকে কেটে বাদ দিতে হয়। এমন দুঃসময়ে লোকটিকে একা ফেলে যাওয়া উচিত হবে না মনে করে হোমস এর সিস্টাররা প্রতিদিন তাকে দেখতে আসতেন। সিস্টাররা শুধু যে লোকটির সাথে সময় কাটাতেন তাই নয়, লোকটির সুস্থ হয়ে ওঠার পেছনে সিস্টারদের অবদান ছিল অপরিসীম। প্রয়োজনের সময়ে এমন মহানুভবতা লোকটিকে তার স্বাস্থ্য ও শক্তি ফিরে পেতে সহায়তা করেছিল। এই লোকটি ছিল একজন মুসলিম, কিন্তু আজ পর্যন্ত লোকটি সিস্টারদেরকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করে যদিও তার ধর্ম আলাদা।

এই ঘটনা থেকেই আমি শিখেছিলাম যে আমাকে আরো ভাল মানুষ হয়ে উঠতে হবে ভেদাভেদকে উপেক্ষা করে। দিনশেষে আমরা তো সবাই মানুষ, তাইনা?”

“When I was younger, my father once took me to Mother Theresa Homes in Farmgate. There I heard this story about a man. He used to live in Narayanganj and had come to Dhaka to provide a better life for his wife and children. This man however, made a few wrong decisions and got caught up with the wrong people. He had also started down the path to drug addiction around the same time. One dreadful night, he was brutally beaten and left for dead near a dumpster in Farmgate by one of the dealers he owed money to. While he was lying there, passed out by the side of the road, a car ran over one of his legs. One of the sisters of Mother Theresa Homes who happened to be passing by found him in this state. She immediately called some locals to the spot and together they took him to a nearby hospital. His injured leg had to be amputated, and he lost its use forever. Unable to simply leave him alone like this, the sisters of the Homes continued to visit him every day. They would spend time with him and played an invaluable role in his nursing and rehabilitation process. Their devoted dedication to a man in need they had simply chanced upon helped him recover his strength and health. This man is Muslim, and to this day he always shows his gratitude to the sisters who helped him regardless of his faith.

That’s how I learned that I had to be better myself, and work through divisions. I mean we are human above all else, right?”

Leave a Reply